শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।

কুরআনুল কারীম সম্পর্কে কিছু তথ্য

কুরআন মাজীদ অথবা কুরআ-ন মাজী-দ, ইসলাম ধর্মের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ, যা আল্লাহর বাণী।
এটি আরবী সাহিত্যের সর্বোৎকৃষ্ট কর্ম হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে। কুরআনকে প্রথমে অধ্যায়ে (আরবীতে সূরা) ভাগ করা হয় এবং অধ্যায়গুলো (সূরা) আয়াতে বিভক্ত করা হয়েছে।

কুরআন পাণ্ডুলিপি। ব্রুকলিন মিউজিয়াম

ব্রিটিশ মিউজিয়ামে ১১ শতকের উত্তর আফ্রিকার কুরআন.

ইরানের মাশহাদে কুরআন, যা আলি কৃর্তক লিখিত

আরাবিক তিলাওয়াত করেছেন, মক্কার সম্মানীত ইমামঃ আবদুর রহমান আস সুদাইস বাংলা অনুবাদ এ কন্ঠ দিয়েছেন; ইসলামের বিশিষ্ঠ দাঈ, ড. নায়েক এর হুবুহু কন্ঠদাতাঃ আনোয়ার শাহি বিনামূল্যে ডাউনলোড করতে ও অনলাইনে শুনতে এখানে ক্লীক করুন।

আল্লাহ সুবহানা তা’আলা’র ফেরেশতা জিব্রাইল(আঃ) এর মাধ্যমে শেষ নবী মুহাম্মাদ (সাঃ) এর কাছে মৌখিকভাবে কুরআনের আয়াতগুলো অবতীর্ণ করেন, দীর্ঘ তেইশ বছর ধরে সম্পূর্ণ কুরআন অবতীর্ণ হয়। কুরআনের প্রথম আয়াত অবতীর্ণ হয় ৬০৯ খ্রিষ্টাব্দের ২২ ডিসেম্বর যখন মুহাম্মাদ (সাঃ)-এর বয়স ৪০ বছর। এবং অবতরণ শেষ হয় মুহাম্মাদ (সাঃ)-এর তিরোধানের বছর অর্থাৎ ৬৩২ খ্রিষ্টাব্দে। আমরা এ বিশ্বাস করি যে কুরআন হচ্ছে মুহাম্মাদ (সাঃ)-এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অলৌকিক ঘটনা যা তার নবুয়তের প্রমাণস্বরূপ। আর এটা সারা দুনিয়ায় প্রমানীত। তখনকার কাফেরদের কাছে প্রমাণীত হওয়ার কারনেই দলে দলে ইসলামে যোগদান করেন। এবং ঐশ্বরিক বার্তা প্রেরণের ধারাবাহিক প্রক্রিয়ার চূড়ান্ত পর্যায় যা আদম (আঃ) থেকে শুরু হয়ে মুহাম্মাদ (সাঃ)-এর মধ্য দিয়ে শেষ হয়।

বুৎপত্তি ও অর্থ

কুরআন এ কুর’আন শব্দটি কয়েকটি অর্থে প্রায় ১৭০ বার এসেছে। আর, আরবি ব্যাকরণে “কুর’আন” শব্দটি একটি “মাসদার”,যা ক্রিয়াবাচক বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ৭৫:১৭,১৮ আয়াতে এটি,(قرأ) ক্বরা’আ (‘পাঠ করা’ বা ‘আবৃত্তি করা’) ক্রিয়ার ক্রিয়াবাচক বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। এই ক্রিয়াপদটিকেই কুরআন নামের মূল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়ে থাকে।[১৮] এই শব্দটির “মাসদার” (الوزن) হচ্ছে غفران তথা “গুফরান”। এর অর্থ হচ্ছে অতিরিক্ত ভাব, অধ্যবসায় বা কর্ম সম্পাদনার মধ্যে একাগ্রতা। উদাহরণস্বরুপ, (غفر) নামক ক্রিয়ার অর্থ হচ্ছে “ক্ষমা করা”; কিন্তু এর আরেকটি মাসদার রয়েছে যার যা হলো (غفران), এই মাসদারটি মূল অর্থের সাথে একত্রিত করলে দাঁড়ায় ক্ষমা করার কর্মে বিশেষ একাগ্রতা বা অতি তৎপর বা অতিরিক্ত ভাব। সেদিক থেকে কুরআন অর্থ কেবল পাঠ করা বা আবৃত্তি করা নয় বরং একাগ্র ভঙ্গীতে পাঠ বা আবৃত্তি করা। কুরআনের মধ্যেও এই অর্থেই কুরআন শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে। কুরআনের সূরা আল-কিয়ামাহের (৭৫ নং সূরা) ১৮ নং আয়াতে এই শব্দটি উল্লেখিত আছে:”অতঃপর, আমি যখন তা পাঠ করি (ক্বুরা’নাহু), তখন আপনি সেই পাঠের (কুরআ’নাহ্‌) অনুসরণ করুন।”[১৯]

 

কুরআনে যেখানেই এই শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে সেখানেই এর যথার্থ বিশেষ্য বা বিশেষণ পাওয়া যায়। ক্বরা’আ ক্রিয়াপদ কুরআনে পুনঃপুনঃ ব্যবহৃত হয়েছে।১৭:৯৩ আয়াতে এর অর্থ ‘পাঠ করা’; কিন্তু এর বহুল প্রচলিত অর্থটি হল,’আবৃত্তি করা’ (তিলাওয়াঃ),৭৫: ১৬,১৭। মুহাম্মদ (সাঃ) এর আবৃত্তি সমন্ধেও এই শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে। তিনি তাঁর নিজের উপর অবতীর্ণ ওহী আবৃত্তি করেন (৭ঃ২০৪; ১৬ঃ৯৮; ১৭ঃ৪৫; ৮৪ঃ২১; ৮৭ঃ৬)। শব্দটি মুমিনদের আবৃত্তি সমন্ধেও ব্যবহৃত হয়েছে , তারা সালাতে ওহী আবৃত্তি করেন (৭৩ঃ২০)। এথেকে বোঝা যায়, কুরআন শব্দের অর্থ হল ‘আবৃত্তি করা’ যা মুহাম্মদ (সাঃ) আল্লাহর নিকট হতে প্রাপ্ত হয়ে আবৃত্তি করেছেন (৭৫ঃ১৮; ৮৬ঃ৬) এবং মানুষের সম্মুখেও আবৃত্তি করেছেন। যদিও কুরআন বলতে সাধারভাবে তাঁর উপর অবতীর্ণ ওহীর সমষ্টীকে বুঝায়।তবে শব্দটি (কুরআন) তাঁর উপর অবতীর্ণ পৃথক পৃথক ওহী (১০ঃ১৫; ১২ঃ৩; ৭২ঃ১; ২ঃ১৮৫) সমন্ধে বা খন্ডে খন্ডে অবতীর্ণ (১৭ঃ১০৬; ২০ঃ১; ৭৬ঃ২৩; ২৫ঃ৩২ ; ৫৯ঃ২১) আল্লাহর ওহী সমন্ধে বলা হয়েছে যা তিঁনি আল্লাহ কতৃক পেয়েছিলেন (২৭ঃ৬; ২৮ঃ৮৫)।

আল কিতাব (ধর্ম গ্রন্থ বা পুস্তক) শব্দটি আল-কুরআনের প্রতিশব্দ হিসাবে একই অর্থে ব্যবহৃত হয়। আল-কিতাব সমন্ধে বলা হয়েছে “ইহা এক কল্যানময়ী রাত্রিতে (৪৪ঃ২) অবতীর্ণ হইয়াছে” (৪০ঃ২; ৪৫ঃ২)। ১৫ঃ১ আয়াতে বলা হয়েছে, “এইগুলি আল-কুরআন এবং সুস্পষ্ট অর্থবোধক আল-কিতাবের অলৌকিক নিদর্শনসমূহ।” বিষয়বস্তু হিসেবে কুরআনকে প্রায়ই ‘যি’কর’ বলা হয়েছে। এখানে এর অর্থ উপদেশ, সাধারণ বানী (২১ঃ২৬,৪২; ৩৮ঃ৮৭)। যি’করকে ‘অবতীর্ণ’ (২১ঃ৫০; ৩৮ঃ৮) এবং ‘মহান পবিত্র গ্রন্থ’ (৪১ঃ৪১) বলা হয়েছে। আবার ৩৬ঃ ৬৯ আয়াতে কুরআন সমন্ধে বলা হয়েছে, “ইহা এক (মহান) যি’কর এবং সুস্পষ্ট অর্থবোধক কুরআন”।২১ঃ৭ আয়াতে আহ্’লুল-কিতাবকে আহ্’লুয যি’কর বলা হয়েছে। এই প্রসঙ্গে আল-হি’কমাঃ শব্দটি উল্লেখ করা যেতে পারে। ২ঃ১২১,১৫১; ৩ঃ১৬৪; ৬২ঃ২ -এ আল-কিতাবের সাথে হি্’কমাঃ উল্লেখ করা হয়েছে। ২ঃ২৩৯; ৪ঃ১১৩ -এ কুরআনের সঙ্গে হি’কমাতের অবতীর্ণ হওয়ার উল্লেখ আছে। কুরআনে, কুরআনকে “আল-ফুরকা’ন”-ও বলা হয়েছে।

“সূরাঃ” শব্দটি আরবী সূর (নগর প্রাচীর) হইতে গৃহীত একবচনজ্ঞাপক…. যোগ করিয়া গঠিত। সূরার ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নির্দিষ্ট অংশকে আয়াত বলা হয়। হিব্রু ‘ওত’ শব্দের ন্যায় ইহা বিশেষ অর্থে নিদর্শন, বিশ্বাসের নিদর্শন (২ঃ২৪৮; ৩ঃ৪১; ২৬ঃ১৯৭) বিশেষত আল্লাহর অস্তিত্ব ও ক্ষমতার নিদর্শন (১২ঃ১০৫; ৩৬ঃ৩৩) বুঝায়। তাই এটি দ্বারা অলৌকিক ঘটনাকে’ও (মু’জিযাঃ) বুঝায় (৩ঃ৪৯; ৪৩ঃ৪৬)। মুহাম্মদ সা. যে আল্লাহর নবী এর প্রমাণস্বরুপ মক্কার পৌত্তলিকরা তার নিকট অলৌকিক ক্রিয়া (মু’জিযাঃ) দেখানোর দাবী করত। যেহেতু প্রেরিত ওহীগুলোই তার অন্যতম মু’জিযাঃ (৬ঃ১৫৮; ৭ঃ২০৩; ২০ঃ১৩৩; ২৯ঃ৫০) সেজন্যই এগুলোর নাম আয়াত হয়েছে। আয়াতগুলো উর্ধ-জগত হতে (২ঃ৯৯; ২৮ঃ৮৭) আল্লাহর নবীর নিকট (২ঃ২৫২; ৩ঃ৫৮; ৪৫ঃ৫) পাঠানো হত এবং পূর্ববর্তী নবীগনের ন্যায় (২৮ঃ৫৯) তিনিও উহা লোকদেরকে আবৃত্তি করে শোনাতেন (২ঃ১৫১; ৩ঃ১৬৪; ৬৫ঃ১১)।

আরও বলা হয়েছে যে, আল্লাহ্ তাঁর আয়াতসমূহের ব্যাখ্যা করেন, (২ঃ১৮৭) ; “মুমিনগণ রাত্রিতে ইহা পাঠ করেন” (৩ঃ১১৩); “একমাত্র কাফিরগণই আমার আয়াতগুলির সত্যতা অস্বীকার করে” (২৯ঃ৪৭)। আবার কিছু যায়গায় গুরুত্ব বোঝানোর জন্য আয়াতসমূহের প্রতিই দৃষ্টি আকর্ষন করা হয়েছে। যেমন,”সূরার ভিতর সুস্পষ্ট আয়াত-সমূহ নাযিল করিয়াছি”(২৪ঃ১); “একটি কিতাব যাহা আমি পাঠাইয়াছি, যেন তাহারা ইহার আয়াতগুলি সমন্ধে চিন্তা করিতে পারে” (৩৮ঃ২১); “এইগুলি হইল জ্ঞানময় কিতাবের আয়াত” (১০ঃ১; ৩১ঃ১) ; ” এইগুলি সুস্পষ্ট অর্থবোধক কিতাবের আয়াত (১২ঃ১; ২৬ঃ১; ২৮ঃ১) ; “এইগুলি আল-কিতাব ও স্পষ্ট বিবরণদানকারী কু’রআনের আয়াত” (১৫ঃ১) ; “এইগুলি আল-কু’রআন ও স্পষ্ট বিবরণদানকারী” (কিতাব) (২৭ঃ১)। “একটি কিতাব যার আয়াতগুলি দৃড়রূপে প্রথিত “, (১১ঃ১, ১৩,১)। কিতাবে সুস্পষ্ট আয়াতসমূহ এবং বিভিন্ন অর্থবোধক আয়াতসমূহ আছে (৩ঃ৭)। যেমন, ” এবং যদি আমি একটি আয়াত বাতিল করে অথবা ভুলাইয়া দেই তবে সেই স্থানে তদপেক্ষা উত্তম অথবা অনুরূপ একটি আয়াত আনয়ন করি” (২ঃ১০৬)। “যদি আমি এক আয়াত অন্য আয়াত দ্বারা বদল করি (১৬ঃ১০১)।

এইসব বিবরন হতে মুহাম্মদ (সাঃ) এর উপর অবতীর্ণ ওহীর বিষয়বস্তু সমন্ধে জানা যায় “উহা সুরক্ষিত ফলক বা লাওহ’ মাহ্’ফুজ’ হইতে অবতীর্ণ হইয়াছে” (৮৫ঃ২২)। ” ইহা একটি সুরক্ষিত পুস্তকে রহিয়াছে” (৫৬ঃ৭৯)। “ইহা আমার নিকট মূল কিতাবে রহিয়াছে” (৪৩ঃ৪; ৩ঃ৭)। আল-কুরআন সমন্ধে বলা হয়েছে, “ইহা একটি উপদেশ-গ্রন্থ যাহা সম্মানিত, উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন এবং পবিত্র পত্রসমূহে মহান ন্যায়নিষ্ঠ লেখকদের হস্তে লিপিবদ্ধ” (৮০; ১১-১৬)। ৫২ঃ৮২ আয়াতে বিস্তারিত পত্রে লিখিত কিতাবের শপথ করা হয়েছে এবং ৬৮ঃ১ -এ বলা হয়েছেঃ “কালাম ও যাহা দ্বারা লেখা হয় তাহার শপথ” এবং ৯৬ঃ৪-৫ এ বলা হয়েছে “কালাম দ্বারা তিনি মানবকে শিক্ষা দিয়েছেন যাহা সে জানিত না” তাঁকে আরও বলা হয়েছে, “তোমার রাব্ব- এর কিতাব হইতে যাহা তোমার প্রতি ওয়াহ্’য়িরূপে পাঠানো হইয়াছে তাহা পাঠ কর”। “আল্লাহর কথা কেহ পরিবর্তন করিতে পারে না ” (১৮ঃ২৭)। ৪ঃ১৬৪; ৪০ঃ৭৮ – এ বলা হয়েছে যে, আল্লাহ তাঁহাকে কতক নবীর কথা বলিয়াছেন এবং কতক নবীর কথা বলেন নাই।

রাসূল এর উপর অবতীর্ণ ওহী থেকেই উম্মুল কিতাব (৪৩ঃ৪) এর মূল বিষয়বস্তু ধারণা করে নেয়া যায়। সেগুলো হল, আল্লাহর সত্তা, বিশ্ব সৃষ্টি – বিশেষত মানব সৃজন, ভাল ও মন্দ আত্না-সমূহের সৃষ্টি, শেষ বিচার, জান্নাত,জাহান্নাম, পূর্ববর্তী নবী গনের অভিজ্ঞতা, আল্লাহর ইবাদত ও সামাজিক জীবন সম্বন্ধীয় যাবতীয় আইন-কানুন এবং বিশেষ বিশেষ আইন (৪ঃ১০৩, ১২৭,১৩৮; ৩৩ঃ৬)। বার মাসের উল্লেখ প্রসঙ্গে (৯ঃ৩৬) এবং ২২ঃ৪ -এ শয়তান কতৃক মানবকে প্রলুব্ধ করার প্র‍য়াস প্রসঙ্গে বিশ্ব সৃজন-তত্বের আভাষ দেয়া হয়েছে। এমনকি, বিশ্বে যা কিছু সংঘটিত হয়েছে এবং সংঘটিত হবে তার সব কিছুই ঐ উম্মুল কিতাবে আছে (১০ঃ৬১; ২৭ঃ৭৫; ৩৪ঃ৩; ৬ঃ৩৮,৫৯; ১১ঃ৬; ২০ঃ৫১; ১৭ঃ৫৮)।

কুরআনের অনেকগুলি নামের মধ্যে বিশেষ চারটি নাম হল আল-কুরআন, আল-ফুরকান, আল-কিতাব ও আয-যিক্’র। ‘আল-কুরআন’ নামের অর্থ ‘যাহা পঠিত হয়’। এটি বহু আয়াত ও সূরার সংকলন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, কুরআনের প্রথম আয়াতের প্রথম শব্দটি হল ‘ইকরা’-‘পাঠকর’। ‘আল-ফুরকান’ নামের অর্থ পার্থক্যকারী, সত্য ও মিথ্যার, আলো ও অন্ধকারের এবং ন্যায় ও অন্যায়ের পার্থক্যকারী। ‘আল্-কিতাব’ অর্থ লিখিত গ্রন্থ যা যথাযথভাবে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। ‘আয-যিক্’র’ নামের অর্থ উপদেশ যা আল্লাহ্-তা‘আলা স্বীয় বান্দাগণকে দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের নিমিত্তে দিয়েছেন।

এটি আল্লাহর বাণী বা বক্তব্য, যা ইসলামের নবী ও রাসূল মুহাম্মাদ (সাঃ) উপর আরবি ভাষায় অবতীর্ণ হয়। তাদের মতে এটি একটি মুজিজা বা অলৌকিক গ্রন্থ যা মানব জাতির পথনির্দেশক। মুসলমানদের বিশ্বাস, কুরআনে মানব জীবনের সকল সমস্যার সমাধান রয়েছে এবং এটি একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান।

সংকলন

মহানবী স. এর জীবদ্দশায় তার তত্ত্বাবধানে প্রথম পূর্ণ কুরআন লিপিবদ্ধ হয়। কিন্তু এগুলো এক জায়গায় একত্রিত করা হয়নি। প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর রা.-এর যুগে দ্বাদশ হিজরি সালে ইয়ামামার যুদ্ধে সত্তর জন হাফেজে কুরআন শাহাদাত বরণ করেন।এতে হযরত ওমর রা. উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। তিনি খলিফা আবু বকর রা.-কে বলেন, “এভাবে জিহাদে হাফেজগন শহীদ হতে থাকলে কুরআনের অনেক অংশ বিলুপ্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে। অতএব, আপনি কুরআন মাজিদ একত্রে সংকলনের ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।” প্রথমে আবু বকর রা. রাজি না হলেও ওমর রা. এর অনুরোধে রাজি হন। কুরআন সংরক্ষণের এ দ্বায়িত্ব রাসূল স. এর যুগের ওহি লেখক সাহাবি যায়েদ ইবনে সাবেত রা. এর উপর প্রদান করা হয়। যায়েদ ইবনে সাবেত রা. নিজে হাফেজে কুরআন ছিলেন। তিনি কুরআন সংকলন করার ব্যাপারে দুটি পদ্ধতি অবলম্বন করেন। একটি হলো-কুরআনের আয়াতটি সংশ্লিষ্ট সাহাবা মুখস্থ বলবেন, অপরটি হলো তিনি মহানবী স. এর যুগে লিখিত ঐ আয়াতটি প্রদর্শন করবেন। তিনি লিখিত ছাড়া কুরআনের আয়াত সত্যায়নের জন্য যথেষ্ট মনে করেননি। তিনি বহু যাচাই বাছাই করতঃ সাহাবায়ে কেরামের নিকট রক্ষিত রাসুলুল্লাহ স. এর জীবদ্দশায় লিখিত বিভিন্ন পাণ্ডুলিপি থেকে সে সময়ের আবিষ্কৃত বিশেষ কাগজে গ্রন্থাকারে কুরআন লিপিবদ্ধ করেন। লিপিবদ্ধ কুরআনটি হযরত আবু বকর রা.-তত্ত্বাবধানে রাখা হয়। তার ওফাতের পর এটি হযরত ওমর রা.-এর হেফাজতে থাকে। তার শাহাদাতের পর তারই ওসিয়ত অনুসারে কুরআনের এ প্রতিলিপিটি নবি করিম স. এর স্ত্রী বিবি হাফসা রা.-এর নিকট গচ্ছিত থাকে। তৃতীয় খলিফা উসমান রা. -এর যুগে ইসলামি সম্রাজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটে। ইসলামের এ প্রসারের ফলে বিভিন্ন জাতি ও ভাষাবাষি লোকেরা দলে দলে ইসলাম কবুল করে। তাদের অনেকেই কুরআনের গঠন পদ্ধতি অনুসরণ করে কুরআনের বিশেষ শব্দ উচ্চারণ করতে পারত না। বিশেষ করে আরমেনিয়া এবং আজারবাইজান যুদ্ধে সমবেত মুসলমানদের কুরআন পাঠ পদ্ধতির বিভিন্নতা দেখে বিশিষ্ট সাহাবি হুযাইফা রা. খলিফা উসমান রা.-কে বিষয়টি অবহিত করেন। তিনি অবিলম্বে এ নিয়ে নেতৃস্থানীয় সাহাবাদের সাথে পরামর্শ করে চার জন বিশিষ্ট সাহাবা সমন্বয়ে একটি বোর্ড গঠন করেন। এ চার জন সাহাবা হচ্ছেন-

• যায়েদ ইবনে সাবিত রা.
• আব্দুল্লাহ ইবনে যুবাইর রা.
• সাইদ ইবনুল আস রা.
• আব্দুর রহমান ইবনে হারিস রা.
হযরত উসমান রা.-এর উদ্দোগে হিজরি ২৪ সালে শেষবারের মতো কুরআন সংকলনের এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এ বোর্ড হযরত হাফসা রা.-এর নিকট সংরক্ষিত মূল কপিটি সংগ্রহ করেন।উক্ত বোর্ড পূর্বলিখিত প্রতিলিপিটি অনুসরণ করে পাঠ ও উচ্চারনের বিভিন্নতা দূর করার জন্য শুধু কুরাইশি উচ্চারণ ও ভাষায় তার আরও সাতটি প্রতিলিপি প্রস্তুত করেন। বর্ণিত আছে যে, সাতটি প্রতিলিপি তৈরি করে মক্কা, শাম, ইয়েমেন,বাহরাইন, বসরা ও কুফা প্রদেশে একটি করে প্রেরণ করা হয়। আর রাজধানী মদিনাতে একটি কপি খলিফার নিকট সংরক্ষিত রাখা হয়। এরপর বিভ্রান্তি নিরসনের জন্য বিক্ষিপ্তভাবে সংরক্ষিত প্রতিলিপিগুলো সকলের কাছ থেকে সংগ্রহ করে বিনষ্ট করে দেওয়া হয়। এভাবে ইসলামের তৃতীয় খলিফা হযরত উসমান রা.-এর পত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে পবিত্র কুরআন সংকলিত ও বিভিন্ন প্রদেশে প্রেরিত হয় বিধায় তাকে “جمع القرآن ” বা কুরআন সংগ্রহকারী বলা হয়।

Close Menu